ভ্যান চালকের পরিবারে ঈদ আনন্দ এনে দিল অভয়নগর ব্লাড ব্যাংক

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর যশোর জেলার খবর

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগর উপজেলায় রক্তদানে নিয়োজিত একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নাম অভয়নগর ব্লাড ব্যাংক। যে সংগঠনে রয়েছে করোনা রোগীর সেবায় অভয়নগর অক্সিজেন ব্যাংক নামে আরো একটি শাখা। দুই সংগঠনে রয়েছে এক ঝাঁক চাকরিজীবী ও কলেজ শিক্ষার্থী ছেলেমেয়ে। মানসেবায় তারা কখনও ছুঁটছে হাসপাতালে অথবা রোগীর বাড়িতে। জীবন বাজি রেখে মানবসেবা নিয়োজিত তারা।

এমনই এক মানবসেবা করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে দুই সংগঠনের সদস্যরা। গত শুক্রবার থেকে মঙ্গলবার (২০ জুলাই) টানা চার দিন দরিদ্র ভ্যানচালক মাসুদ মল্লিকের পরিবারের পাশে থেকে আর্থিক সহযোগিতা করে ফিরিয়ে দিয়েছে ঈদের আনন্দ।

এ ব্যাপারে ভ্যানচালক মাসুদ মল্লিক জানান, গত রোববার (১৬ জুলাই) সকালে তাঁর স্ত্রী রহিমার প্রসব যন্ত্রণা শুরু হয়। দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি ও সিজার করার পরামর্শ দেন ডাক্তার। গরীব ঘরের ছেলে ভ্যান চালিয়ে দিন চলে। হাসপাতালে ভর্তি ও সিজার করার টাকার জন্য মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। কেউ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়নি। সেই সময় পাশে এসে দাঁড়ায় অভয়নগর ব্লাড ব্যাংক। ওই দিন অপারেশনের মাধ্যমে আমার স্ত্রী একটি কন্যা সন্তান প্রসব করে। আজ আমার মেয়ের বয়স ৪ দিন। মা-মেয়ে দুজনে ভালো আছে। হাসপাতালের সব খরচ ওরা দিয়েছে। আবার ওষুধ ও নগদ টাকা দিয়েছে। ওরা আমার পরিবারে ঈদের আনন্দ ফিরিয়ে দিয়েছে। আল্লাহ ওদের ভালো করবেন।

অভয়নগর ব্লাড ব্যাংকের উদ্যোক্তা সৈয়দ সোহায়েব ইমতিয়াজ ইয়াদ জানান, স্বেচ্ছায় রক্তদানের পাশাপাশি বিনামূল্যে করোনা আক্রান্ত রোগীর অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম অব্যাহত আছে। বিপদগ্রস্ত ভ্যানচালক মাসুদ মল্লিক, তার স্ত্রী ও নবজাতক শিশু কন্যার মুখে হাসি ফোটাতে পেরেছি আমরা। আজ মঙ্গলবার দুপুরে হাসপাতালের খরচ ১১ হাজার ৬০০ টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। পরিবারটিকে তাদের বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনীয় ওষুধ ও ঈদ উপলক্ষে কিছু নগদ অর্থ দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরো জানান, করোনাকালিন সময় অভয়নগর অক্সিজেন ব্যাংকের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার ক্রয়ে হৃদয়বান অনেক মানুষ ৫০ টাকা থেকে শুরু করে এক হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়েছিলেন। সিলিন্ডার ক্রয়ের পর ক্ষুদ্রক্ষুদ্র জমানো টাকা দিয়ে ভ্যান চালক মাসুদ মল্লিকের স্ত্রীর প্রসবকালিন সকল খরচ বহন করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় ওষুধ ও ঈদ উদযাপনের জন্য নগদ টাকা দেওয়া হয়েছে। মানবসেবার জন্য যেসব হৃদয়বান মানুষ আর্থিক সহযোগিতা করে আসছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।