খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে দলের নেতৃত্ব দিবেন: ফখরুল

রাজনীতি

চারিদিক ডেস্ক : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অতি দ্রুত সুস্থ হয়ে নেতৃত্ব দিবেন, এমন আশা প্রকাশ করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার (৫ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিএনপি আয়োজিত বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে ‘বৈশ্বিক দুর্যোগ: ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ও করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

এ সময় তিনি বলেন, একটি দানব সরকার আমাদের সব কিছুকে তছনছ করে দিচ্ছে। আমাদের স্বপ্নকে তছনছ করে দিচ্ছে। সেইখান থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। তার জন্য আমাদের পরিকল্পিত ভাবে হাত-পা ছুড়তে হবে। হতাশা শব্দটাই মাথার মধ্যে আনবেন না। হতাশাকে বাদ দিয়ে আশার আলো দেখে সামনের দিকে আগাতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, তারেক রহমানের নেতৃত্বে অবশ্যই এই সংগ্রামে বিএনপি জয়ী হব। খালেদা জিয়া আমাদের সেই অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। আমরা বিশ্বাস করি তিনি অতি দ্রুত সুস্থ হয়ে সেই সংগ্রামে নেতৃত্ব দিতে সমর্থ হবেন।

পরিবেশ রক্ষায় নেতাদের বিশেষ করে রাজনৈতিক নেতাদের এবং সরকার দলীয়দের কমিটমেন্ট বড় প্রয়োজন ছিল বলে মনে করেন ফখরুল।

তিনি বলেন, বাস্তবতা হচ্ছে পৃথিবী ধ্বংস হচ্ছে। পৃথিবী অতি দ্রুত তার ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। কারণ উন্নত দেশগুলো তাদের স্বার্থে ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট করেছে। কার্বনের কারণেও ওজন মন্ডল ফুটো হয়ে গেছে। যার ফলে পৃথিবীর উষ্ণতা সৃষ্টি হয়েছে। এই উষ্ণতার ফলে পৃথিবীর সব ইকোসিস্টেম নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এখানে বিশ্ব নেতাদের একটা কমিটমেন্ট প্রয়োজন। সে কমিটমেন্ট নিয়ে পৃথিবীকে বাঁচানোর চেষ্টা করতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়া পরিবেশের জন্য যে উদ্যোগ নিয়েছিলেন তা ইকো ব্যালেন্স রক্ষা করার জন্য। এই যে উপকূলের সবুজ বেষ্টনী, সে সময় লাখ লাখ গাছ লাগানো হয়েছিল। রাস্তার ধারে গাছ লাগালে সামাজিক বনায়ন হবে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জিয়াউর রহমান সাহেব যে খাল খনন কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলেন তার তিনটা দিক ছিল। একটি হচ্ছে প্রাকৃতিক পানি সংরক্ষণ করা ও সেখান থেকে ইরিগেশন করা, মাছের চাষ করা এবং খালের দুই ধারে বাগান তৈরি করা।

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সহ-সম্পাদক কাজী রওনাকুল ইসলাম টিপু, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক কমিটির সদস্য প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন প্রমুখ।

চারিদিক/সিডি