মোল্লাহাটে শতাধিক পরিবার পুরুষশূণ্য, বাড়িঘর ভাঙচুর-লুটপাট

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলার হাড়িদাহ গ্রামের শতাধিক পরিবারের পুরুষ সদস্যরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। পুরুষদের পাশাপাশি জীবন-সম্মান বাঁচাতে নারী ও শিশুরাও এক ধরনের পলাতক জীবনযাপন করছেন। আর এই সুযোগে প্রতিপক্ষরা তাদের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করেই চলেছে। এ ঘটনায় এলাকায় ভীতিকর পরিবেশ বিরাজ করছে।

শুক্রবার (২৮ মে) দুপুরে মোল্লাহাট প্রেসক্লাবে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন হাড়িদাহ গ্রামের শফিকুল মোল্লার স্ত্রী সুফিয়া বেগম।

লিখিত বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, মোল্লাহাট উপজেলার হাড়িদাহ গ্রামে দুই মোল্লা গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছিল। এই বিষয়ে একাধিকবার শালিশ বৈঠকও হয়েছে। গত ঈদুল ফিতরের আগের রাতে হাড়িদহ গ্রামের বয়বৃদ্ধ ও অসুস্থ ইউসুফ শেখকে (৭৫) জবাই করে হত্যা করে দূবৃত্তরা। এই ঘটনায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে সমাজসেবক রশিদুজ্জামানসহ ৭২ জনের নাম ও অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। মামলা দায়েরের পর তাদের পুরুষ সদস্যরা গা ঢাকা দিলে প্রতি প্রতিপক্ষরা তাদের বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাট চালাতে থাকে। ফলে এলাকায় ভীতিকর পরিবেশ বিরাজ করছে। ছোট শিশুরাও ভয়ে ঘুমাতে পারছে না।

মামলায় আটক ৮ জন কারাগারে রয়েছে। মিথ্যা মামলায় হয়রানি বন্ধ করে এলাকায় শান্তি ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে হাড়িদাহ গ্রামের গৃহবধু নীগার সুলতানা, রেখা বেগম, হালিমা বেগম, শরিফা বেগম, সুরতী বেগমসহ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের কয়েকজন নারী উপস্থিত ছিলেন।

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী গোলাম কবীর জানান, ‘মামলাটি তদন্তানাধীন। এলাকার বর্তমান পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

শামীম আহসান মল্লিক/চারিদিক/সাকিব