মাদক নিরাময় কেন্দ্রে যুবক হত্যায় তিনজনের স্বীকারোক্তি

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল যশোর জেলার খবর

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ১৪ জনের মধ্যে তিনজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। একইসঙ্গে শুনানি শেষে অপর ১১ জনের বিরুদ্ধে পুলিশের দেওয়া সাত দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানির জন্য আগামী ২৭ মে দিন নির্ধারণ করেন আদালত।

সোমবার (২৪ মে) বিকেলে যশোরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহাদৎ হোসেন ওই ৩ আসামির জবানবন্দি গ্রহণ করেন।

এর আগে দুপুর দেড়টার দিকে মামলার ১৪ আসামিকে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

কোর্ট পরিদর্শক মাহাবুবুর রহমান বলেন, তিন আসামি চৌগাছার বিশ্বাসপাড়ার মশিয়ার রহমানের ছেলে রিয়াদ, ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরের সাবদার রহমানের ছেলে শাহিনুর রহমান ও যশোর শহরের আবদুর রশিদ মিয়াজীর ছেলে রেজাউল করিম রানা স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। এছাড়া অপর ১১ আসামির রিমান্ড শুনানির জন্য আগামী ২৭ মে দিন নির্ধারণ করেছেন বিচারক।

বাকি ১১ আসামি হলেন, কেন্দ্রের পরিচালক শহরের বারান্দী মোল্লাপাড়া এলাকার মাসুম করিম ও বারান্দীপাড়ার আশরাফুল কবির, একই গ্রামের আরিফুজ্জামান, যশোর শহরের ওহেদুজ্জামান, এএসএম সাগর আজিজ, সদর উপজেলার ওহিদুল ইসলাম, বকচর হুশতলার আল শাহরিয়ার রোকন, বেনাপোলের শাখারিপোতার ইসমাইল হোসেন, অভয়নগরের শরিফুল ইসলাম, শেখহাটি হাইকোটপাড়ার নুর ইসলাম ও সাতক্ষীরার কলারোয়ার অহেদুজ্জান সাগর।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মো. রকিবুজ্জামান জানান, চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার নারায়ণপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকার মনিরুজ্জামানের ছেলে মাহফুজুর রহমান মাদকাসক্ত ছিলেন। তাকে গত ২৬ এপ্রিল যশোর মাদকাসক্তি নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্র নামে একটি প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে তার পরিবার।

তিনি আরও জানান, গত শনিবার দুপুরে মাহফুজুরের মৃতদেহ যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেখে আসে নিরাময় কেন্দ্রের লোকজন। একইসঙ্গে পরিবারকে তার মৃত্যুর খবর জানানো হয়। নিরাময় কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের আচরণ সন্দেহজনক হওয়ায় মাহফুজুরের পরিবার থানায় অভিযোগ দেয়।

তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, এরপর তদন্তে নির্যাতনে হত্যার বিষয়টি সামনে আসে। এ সংক্রান্ত সিসিটিভি ফুটেজও পাওয়া যায়। সেখানে দেখা যায়, বেশ কিছু লোক মিলে এক যুবককে পেটাচ্ছেন। এরপর মাহফুজুরের বাবা ১৪ জনকে আসামি করে যশোরের কোতোয়ালি থানায় মামলা করলে পুলিশ ওই ১৪ জনকে গ্রেফতার করে।

পুলিশ পরিদর্শক মো. রকিবুজ্জামান জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সোমবার তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়। এর মধ্যে তিনজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন এবং অন্য ১১ জনকে সাতদিনের রিমান্ডে নেওয়ার জন্য আদালতে আবেদন জানানো হয়।

চারিদিক/এনএস