দৃষ্টি নন্দন সূর্যমুখী বাগান

দেশের খবর ফিচার

নজরুল ইসলাম, গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) : প্রায় ছয় লাখ জন অধ্যুষিত ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় বিনোদনের কোন জায়গা নেই। বিনোদন প্রিয় মানুষ ঈদ-পরবে নিতান্ত বাধ্য হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের উপর নির্মিত পৌর শহরের আলতাফ গোলন্দাজ সেতু, পাঁচবাগ ইউনিয়নের খুরশিদ মহল সেতু ও টাঙ্গাব ইউনিয়নের বানার নদীর উপর সদ্য নির্মিত সেতু ভ্রমণ করে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটান। তবে সম্প্রতি পৌর শহরের ব্রহ্মপুত্র চরে দুই যুবলীগ নেতার সূর্যমুখী ফুলের বাগান বিনোদন প্রত্যাশি মানুষের মন জয় করে নিয়েছে। প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সূর্যমুখী বাগান ঘুরে-ছবি তুলে আনন্দ নিতে আসেন।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল রোববার (১১ এপ্রিল) বিকেলে দলীয় নেতৃবৃন্দ নিয়ে বাগানটি ঘুরে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

জানা যায়, পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তাজমুন আহমেদ ও যুবলীগ নেতা মফিদুল ইসলাম টিপুর যৌথ উদ্যোগে পৌর শহরের ব্রহ্মপুত্র চরে প্রায় দুই হেক্টর জমিতে সূর্যমুখী চাষ করেছেন। সঙ্গে ফুল থেকে মধু আহরণে মৌমাছির দুইটি কলোনী স্থাপন করেছেন। সূর্যমুখী বাগান ঘুরতে আসা মানুষ মধু আহরণের চমৎকার পদ্ধতি দেখে দারুন আনন্দ পাচ্ছেন।

পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তাজমুন আহমেদ বলেন, ‘প্রতিদিন বিকেলে লোকজন পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘুরতে আসেন। দাঁড়িয়ে ছবি তুলে ফেইসবুকে ছাড়েন। সবাই আনন্দ নিয়ে ফিরে যান। বিষয়টি আমাদের বেশ আনন্দ দিচ্ছে। শুরুতে দুই হেক্টর জমিতে সূর্যমুখী চাষ ও মধু আহরণ করেছি। পলিযুক্ত বেলে মাটি বলে ফলন খুব ভালো হয়েছে। ইচ্ছে আছে আরো বেশী জমিতে সূর্যমুখী চাষ করার।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘সূর্যমুখী তেলের দাম অনেক বেশী। সাধারণ সয়াবিন তেল যেখানে ১০০/১২০টাকা লিটার, সেখানে সূর্যমুখী তেল ৩০০/৩৫০ টাকা লিটার। চরে পলিযুক্ত বেলে মাটি বলে খুব ভালো উৎপাদন হয়েছে। তা ছাড়া সাথে মধু আহরনে অতিরিক্ত লাভ। আশা করা যায় সার্বিক ভাবে উদ্যোগটি লাভ জনক হবে।’

চারিদিক/সাকিব