টিসিবি’র পণ্য না পেয়ে ফিরে গেলেন শতশত ক্রেতা

যশোর জেলার খবর

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) সারাদেশে ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রি শুরু করেছে। যশোরের অভয়নগরে পণ্য না পেয়ে ফিরে গেছে শতশত ক্রেতা। চাহিদা মোতাবেক টিসিবি’র পণ্য সরবরাহের দাবি করেছে এলাকাবাসী।

সোমবার (৫ এপ্রিল) সরেজমিনে দেখা যায়, অভয়নগর উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তদরের সামনে ন্যায্যমূল্যে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি করছেন পরিবেশক দেলোয়ার হোসেন দেলু। টাঙানো রয়েছে পণ্যে বিক্রির মূল্য তালিকা। চিনি, মশুর ডাল ও ছোলা প্রতিকেজি ৫৫ টাকা। এছাড়া সয়াবিন তেল প্রতিলিটার একশত টাকা, খেজুর প্রতিকেজি ৮০ টাকা ও পেয়াজ ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে লাইনে দাঁড়িয়ে শতশত নারী ও পুরুষ এসব পণ্য ক্রয় করছেন।

লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা বৃদ্ধা আমেনা বেগম জানান, প্রায় এক ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। টিসিব’র পণ্য প্রায় শেষের পথে। আমি পাব কি ? তাঁর মত অসংখ্য নারী-পুরুষকে এভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

দুপুরের পর পরই বিক্রি হয়ে যায় টিসিবি’র সব পণ্য। ব্যাগ হাতে শতশত নারী ও পুরুষকে ফিরে যেতে দেখা যায়।

এ সময় কয়েকজন ক্রেতা ক্ষোভের সাথে জানান, টিসিবি’র পণ্য আমরা কি পাবনা?

স্কুল শিক্ষক ফারুক আহমেদ জানান, শিল্প শহর অভয়নগরের নওয়াপাড়ায় রয়েছে প্রায় দেড় লাখ মানুষ। যার অধিকাংশ শ্রমিক। টিসিবি যে পণ্য সরবরাহ করেছে তা তিনশত মানুষের এক সপ্তাহের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব না। পর্যাপ্ত পরিমাণে পণ্য সরবরাহ করতে হবে।

এ ব্যাপারে পরিবেশক দেলোয়ার হোসেন দেলু জানান, টিসিবি খুলনা অফিস থেকে আমাকে এক হাজার লিটার তেল, ৫০০ কেজি মশুর ডাল, ৫০০ কেজি চিনি, ১৫০ কেজি পেঁয়াজ ও ৪০০ কেজি ছোলা দেওয়া হয়েছে। যা সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে বিক্রি শুরু করা হয়েছে। চাহিদার তুলনায় কম পাওয়ায় অনেক ক্রেতা পণ্য না পেয়ে ফিরে গেছেন। পণ্য বেশি পেলে চাহিদার অনেকাংশ পূরণ করা সম্ভব হবে।

এ ব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আমিনুর রহমান জানান, টিসিবি’র দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খুলনা টিসিবি অফিস প্রধান ডেপুটি সিনিয়র এক্সকিউটিভ আনিসুর রহমান মুঠোফোনে জানান, এপ্রিল মাসের প্রথম থেকে পণ্য বিক্রি শুরু হয়েছে। পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে অভয়নগরের জনগণের চাহিদা মোতাবেক পণ্য সরবরাহের চেষ্টা করা হবে।

মাসুদ তাজ/চারিদিক/সাকিব