কালীগঞ্জে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত অন্তত ১০ জন

দেশের খবর

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নারী পুরুষ ও শিশুসহ ১০ জন নিহত হয়েছেন। বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেল তিনটার দিকে যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের আমজাদ আলী ফিলিং স্টেশনের (তৈলপাম্প) সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খুলনা থেকে কুষ্টিয়াগামী গড়াই পরিবহনের একটি বাস ওভারটেক করতে যেয়ে  বারবাজার তেল পাম্পের কাছে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের উপর উল্টে যায়। এ সময় কুষ্টিয়া থেকে যশোর দিকে যাওয়া একটি দ্রুতগামী ট্রাক বাসটিকে আঘাত করলে ঘটনাস্থলে বাসের ৯ যাত্রী নিহত হয়। এ সময় আহত হয় আরো ১৫/২০ জন বাসের যাত্রী। আহতদের উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো একজন মারা যায়। নিহত ১০ জনের মধ্যে নারী, পুরুষ ও শিশু রয়েছে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে কালীগঞ্জ, ঝিনাইদহ ও যশোর ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা এসে লাশ উদ্ধার ও রাস্তায় উল্টে যাওয়া বাসটিকে উদ্ধার করে। সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

বারবাজার হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মেজবাহ উদ্দীন জানান, নিহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। তবে নিহত ১০ জনের মধ্যে রেশমা খাতুন (১৮) নামের একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। সে যশোর থেকে অনার্স পরীক্ষা দিয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলার ডিঙ্গেদা গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিল।

ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ষ্টেশনের উপ-পরিচালক শামীমুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে প্রথম কালীগঞ্জ ফায়াস সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পরে তাদের সাথে যশোর ও ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা যোগ দিয়ে উদ্ধার কার্যক্রম চালায়। ঘটনাস্থলে ৯ জন মারা যায়। আহত হয় ১৫ থেকে ২০ জনের মত। তাদের  উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের এ্যাম্বুলেন্সের গাড়ীতে করে কালীগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঝিনাইদহ-৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল আজীম আনার, কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবর্না রানী সাহাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

চারিদিক/এম