গফরগাঁওয়ের অর্ধশত কৃষকের মুখে ফুটলো হাসি

দেশের খবর

নজরুল ইসলাম, গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) : ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে সেচ প্রকল্পের মালিকানা বিরোধের জের ধরে পানি না দেওয়ায় অর্ধশত কৃষক বিপাকে পড়েন। এতে চলতি মৌসুমে কয়েক একর জমির চাষাবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত  উপজেলার মশাখালী ইউনিয়নের বলদী গ্রামে দুই পক্ষের  সমযোতায় পুনরায় সেচ ব্যবস্থা চালু হওয়ায় অর্ধশত কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে।

সমযোতাকালে ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল মনি, উপজেলা কৃষকলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক করম উল্লাহ মাসুদ, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক এম সালাউদ্দিন পলাশ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম মিলনসহ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও এলাকাবাসীর উপস্থিতিতে ছিলেন।

জানা যায়, বলদী গ্রামে গভীর নলকুপের মালিকানা নিয়ে জনৈক আসাদ কাইয়া ও হীরা পাঠানের মধ্যে বিরোধ চলছিল। ফলে নলকূপটি চালু থাকলেও প্রকল্পের একটি অংশে পানি সেচ বন্ধ ছিল। এতে ঐ অংশের প্রায় ৩-৪ একর ফসলী জমিতে চাষাবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়ায় অর্ধশত কৃষক চরম বিপাকে পড়েন। এ অবস্থায় ভুক্তভোগী কৃষকরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফ উদ্দিন বাদলের কাছে প্রতিকার চেয়ে আবেদন করেন। তিনি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে বিরোধ মীমাংসা ও সেচ চালু করার নির্দেশ দেন।

সেই প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত নলকূপের পাশে নেতৃবৃন্দ সহ এলাকার কয়েকশ গ্রামবাসীর উপস্থিতিতে আলাপ আলোচনা করে দুই পক্ষের সম্মতিতে পানি সেচ চালু করা হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল মনি বলেন, চলতি মৌসুমে চাষাবাদ যাতে বন্ধ না থাকে সে জন্য আলোচনার মাধ্যমে দুই পক্ষের দুই প্রবীনকে দায়িত্ব দিয়েছি। মালিকানা বিরোধ পরবর্তীতে বিধি অনুযায়ী সমাধান হবে।

চারিদিক/এম