গফরগাঁওয়ে ২৪ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে হবে মিনি শিশু পার্ক

দেশের খবর

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি।।

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে প্রাথমিক শিক্ষার্থীরা আনন্দময় পরিবেশে শিক্ষা গ্রহনের লক্ষে আরো ২৪ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আঙিনায় মিনি শিশু পার্ক ( নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ) নির্মাণ করা হবে।

ইতিপূর্বে গফরগাঁও খায়রুল্লাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আঙিনায় মিনি শিশুপার্ক (নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ) নির্মাণ করা হয়েছে। এতে বিদ্যালয়টির ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা ক্লাশের ফাকে খেলাধুলা করে আনন্দময় পরিবেশে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারছে।

এ ছাড়া উপজেলার বনগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়(অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত), ইসলামিয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাইথল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কান্দিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ নির্মানের জন্য এক লাখ ৫০ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দিয়েছেন সরকার।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আরও ২০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ নির্মাণের জন্য তালিকা চেয়েছেন স্থানীয় প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উদ্যোগে ২০২০-২১ অর্থ বছরে পিইডিপি-৪ এর আওতায় পর্যায়ক্রমে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহে নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ(খেলাধুলার বিভিন্ন আধুনিক উপকরণ) নির্মাণ করা হবে।

তবে যেসকল বিদ্যালয়ে ৩৩শতাংশ জমি, খেলার মাঠ, সীমানা প্রাচীর ও নূন্যতম ১৫০জন শিক্ষার্থী আছে সেই বিদ্যালয়গুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে।

উপজেলায় মোট ২৩৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে গফরগাঁও খায়রুল্লাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আঙিনায় মিনি শিশুপার্ক(নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ) নির্মাণ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা ক্লাশের ফাকে খেলাধুলা করে আনন্দময় পরিবেশে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারছে। এতে বিদ্যালয়টির শিক্ষার পরিবেশ পাল্টে গেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা(ভারপ্রাপ্ত) সালমা আক্তার বলেন, এটি সরকারের চমৎকার একটি উদ্যোগ। খায়রুল্লাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আঙিনায় মিনি শিশুপার্ক(নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ) নির্মাণ করার পর থেকে যেসকল ক্ষুদে শিক্ষার্থী পড়ালেখায় ফাঁকি দিত, অমনোযোগী ছিল বা শ্রেণী কক্ষে মনমরা হয়ে থাকতো তারাও ক্লাশের ফাঁকে খেলাধুলার সুযোগ পাওয়ায় ভালো করছে।

চারটি বিদ্যালয়ে নিড বেইজড প্লেয়িং এক্সেসরিজ নির্মাণের বরাদ্দ ইতিমধ্যে এসেছে। এ ছাড়াও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আরো ২০টি বিদ্যালয়ের তালিকা চেয়েছেন। আমরা যাচাই বাছাই করে তালিকা প্রেরণের প্রক্রিয়া শুরু করেছি।