কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহি নিহত,ছেলে গুরুতর

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর যশোর জেলার খবর

যশোর প্রতিনিধি।।

যশোরে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় নয়ন হোসেন মোল্যা (৫২) নামে এক ব্যক্তি নিহত এবং তার ছেলে জাফর মোল্যা (২০) আহত হয়েছেন।আজ শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) বেলা ১১টার দিকে যশোর-মাগুরা সড়কের  হুদারাজাপুর এলাকায় এঘটনা ঘটে। নিহত ও আহতরা মোটরসাইকেলে আরোহি ছিলেন। হাসপাতাল সুত্র জানায়, জাফরের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে ঢাকায় রেফার করা হয়েছে।

স্থানীয়রিা জানায়,নয়ন মোল্যা ও তার ছেলে জাফর একটি মোটরসাইকেলে খাজুরা এলাকা থেকে যশোরের দিকে আসছিলেন। ওই সময় পেছন দিক থেকে একটি কাভার্ডভ্যান তাদের ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে নয়ন মোল্যা দুর্ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান। পরে লোকজন তাদের যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তার দেলোয়ার হোসেন খান বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই নয়ন মারা গেছেন। তার ছেলের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার করা হয়েছে।

যশোর কোতয়ালী থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।নিহত নয়ন মোল্যা যশোর সদরের হৈবতপুর এলাকার বাসিন্দা।

এদিকে এ ঘটনার পরপরই  স্থানীয় লোকজন স্প্রীড ব্রেকারের দাবীতে যশোর-মাগুরা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। প্রায় দুই ঘন্টার এ অবরোধ চলাকালে মহাসড়কের দু’প্রান্তের প্রায় তিন কিলোমিটায় পর্যন্ত তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে দুরপাল্লার যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েন। পরে বেলা ১টার দিকে সদর উপজেলার ইছালী ইউপি চেয়ারম্যান এসএম আফজাল হোসেন ঘটনাস্থলে এসে প্রশাসনের সাথে কথা বলেন।এক সপ্তাহের মধ্যে স্প্রীড ব্রেকার তৈরি করা হবে বলে আশ্বস্ত করলে বিক্ষোভকারীরা অবরোধ তুলে নেয়।

গত ১৯ ডিসেম্বর যশোর-মাগুরা মহাসড়কের ওই স্থানে যাত্রীবাহী বাস উল্টে দু’জন মাদরাসা শিক্ষার্থী নিহত ও অন্তত ২০ যাত্রী আহত হয়। এর আগে ১৩ ডিসেম্বর দ্রুতগামী দেশ ট্রাভেলস পরিবহনের একটি বাসের চাকায় পৃষ্ট হয়ে মোটরসাইকেল চালক এক কলেজ শিক্ষার্থী ঘটনাস্থলেই মারা যান।