স্ত্রীর মর্যাদা আর সন্তানের স্বীকৃতি চান হোমায়রা

অপরাধ ও আইন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর যশোর জেলার খবর

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি।।

স্ত্রীর মর্যাদা ও সন্তানের স্বীকৃতির দাবিতে যশোরের অভয়নগরে স্বামী এমডি মোর্শারফ হোসেনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্ত্রী হোমায়রা বেগম। এমডি মোশারফ হোসেন যশোরের নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ের একজন প্রভাষক ও খুলনার কয়রা উপজেলার কয়রা গ্রামের মুছাদ্দেক হোসেনের ছেলে। সোমবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে নওয়াপাড়া প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন স্ত্রী হোমায়রা বেগম।

তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্কের পর এমডি মোর্শারফ হোসেনে সঙ্গে ২০১৪ সালে ইসলামী শরিয়া মোতাবেক আমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে আমার স্বামী মোর্শারফ হোসেন যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকেন। প্রথম পর্যায়ে দেড় লাখ টাকার বিনমিয়ে একটি মোটরসাইকেল ও দ্বিতীয় পর্যায়ে মৎস্য ঘেরের জন্য পাঁচ লাখ টাকা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে আরো টাকার জন্য চাপ দিতে থাকেন। টাকা দিতে না চাইলে শুরু করেন শারীরিক নির্যাতন।

এরই মধ্যে তাদের ঘরে জন্ম নেয় একটি কন্যা সন্তান। নাম রাখা হয় মেহেরুন জান্নাত। যার বর্তমান বয়স ১৫ মাস। নারী ও যৌতুক লোভী এমডি মোর্শারফ হোসেন নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের গণিতের প্রভাষক। নিজেকে অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে ২০১৯ সালে খুলনা দাকোপ থানার সাদেক গাজীর মেয়ে সাথী আক্তারকে বিয়ে করেন। দ্বিতীয় বিয়ের পর তার  (হোমায়রা) উপর নতুন করে শুরু করেন অমানুষিক নির্যাতন। বন্ধ করে দেয় সংসারের ভরণপোষণসহ যাবতীয় খরচ।

স্ত্রীর মর্যাদা ও সন্তানের স্বীকৃতির দাবিতে দ্বারস্থ হন নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র ও নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষের নিকট। কোন সমাধান না পেয়ে গত ১৫ নভেম্বর অভয়নগর থানা এবং ১৭ নভেম্বর খালিশপুর থানায় পৃথক লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এমডি মোর্শারফ হোসেন

হোমায়রা বেগম সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে স্ত্রীর মর্যাদা ও সন্তানের স্বীকৃিত চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, হোমায়রা বেগমের বোন বৈশাখী খাতুন, ভাই বাবলু খাঁন, জুয়েল রানা, অনিক ইসলাম ও একমাত্র কন্যা সন্তান মেহেরুন জান্নাত।