স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারীসহ ১১ জনের জামিন

অপরাধ ও আইন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর যশোর জেলার খবর রাজনীতি

স্টাফ রিপোর্টার।।

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় দাযেরকরা মামলায স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারীসহ ১১ জনের জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

১১ জনের মধ্যে দুইজন আব্দুর রহিমের ছেলে সাহেব আলী ও হাবিবার তরফদারের ছেলে পিকুল আটক ছিলেন। বাকী নয়জন বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর)আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন জানালে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতে বাঘারপাড়া থানার দায়িত্বরত জিআরও নকিব উদ্দীন।

এরআগে বুধবার ইন্দ্রা গ্রামের আবু জাফর মোল্লার ছেলে নৌকা প্রতীকের কর্মী জাকির হোসেন বাঘারপাড়া থানায় মামলাটি করেন। পুলিশ অভিযোগ পেয়ে সাহেব ও পিকুল নামে দুইজনকে গ্রেফতার করে। মামলার অন্য আসামিরা হলেন, দোহাকুলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ছরোয়ার, ইন্দ্রা গ্রামের মৃত আজগর আলীর ছেলে ফুল মিয়া,  জলিল শিকদারের ছেলে ও ইউপি সদস্য তরিকুল ইসলাম,   মোকাম মোল্লার ছেলে বাহারুল ইসলাম,  মৃত মাহাতাব মোল্লার ছেলে শুকুর আলীও মৃত খয়বার মোল্লার ছেলে রবিউল ইসলাম। এছাড়া আরো অজ্ঞাত নামা ১০-১২ জনকে আসামি করা হয়েছে।

জামিন প্রাপ্তরা হলেন, সাবেক চেয়ারম্যান রেজাউল ইসলাম দিলু পাটোয়ারী,  উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক শচীন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুন্সি বাহার উদ্দিন,  সিরাজ মোল্লার ছেলে রফিকুল ইসলাম, মৃত ইসরাইল বিশ্বাসের ছেলে হায়দার আলী, মহিরন এলাকার মৃত আলেক মোল্লার ছেলে মিঠু, গহুর মোল্লার ছেলে আশিকুল, নারিকেলবাড়িয়া গ্রামের মৃত আনছার আলীর ছেলে ও যুবলীগ নেতা গিয়াস উদ্দিন হীরা, ধুপখালি গ্রামের ওহাব কাজীর ছেলে হুমায়ুন।

উল্লেখ, ১৭ নভেম্বর রাত সোয়া নয়টার দিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী নারিকেলবাড়িয়া থেকে ইন্দ্রা বাজারে এসে তার কর্মী সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন। ওই সময় নৌকা প্রতীকের সমর্থকদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় অন্তত ১২-১৪ জন আহত হন। নৌকা প্রতীকের সমর্থক জাকির হোসেন অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, পরিকল্পিতভাবে তাদের ওপর দিলু পাটোয়ারীর সমর্থকেরা হামলা করে। এদিকে, জামিন পেয়ে দিলু পাটোয়ারী বলেন, তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমুলক মামলা করেছে। একটি পক্ষ নির্বাচনকে বানচাল করতেই মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন। তিনি দাবি করেন বাঘারপাড়াবাসী তার সাথে আছেন।

আগামী ১০ ডিসেম্বর বাঘারপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম কাজল হবিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে পদটি শূন্য হয়। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক পেয়েছেন নিহত উপজেলা চেয়ারম্যান কাজলের স্ত্রী ভিক্টোরিয়া পারভিন সাথী। ইউপি চেয়ারম্যান দিলু পাটোয়ারী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া নির্বাচনী লড়াইয়ে রয়েছেন বিএনপির প্রার্থী জামদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শামছুর রহমান।

 

চন্দন দাস

০১৭১১-৯৪৮৭৫২

১৯.১১.২০ খ্রীস্টাব্দ