অভয়নগর স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে সিজার ও মাইনর সার্জারি শুরু

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল যশোর জেলার খবর

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি।।

যশোরের অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে গর্ভবতী মায়েদের সিজারের মধ্যদিয়ে ফের শুরু হল সিজার ও মাইনর সার্জারি কার্যক্রম। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার পায়রা ইউনিয়নের বারান্দী গ্রামের একরামুলের গর্ভবতী স্ত্রী শারমিনকে সিজারিয়ানের মাধ্যমে কন্যা সন্তান প্রসব করানো হয়।

সিজারিয়ান করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এস এম মাহমুদুর রহমার রিজভী, ডা. ইফ্ফাত দীপ্তি (সার্জন), ডা. চন্দন সরকার (এনেসথেসিয়া) প্রমুখ।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, সার্জন ও এনেসথেসিয়া ডাক্তার না থাকায় দীর্ঘ ৬ মাস সিজার ও মাইনর সার্জারি কার্যক্রম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল। ভোগান্তিতে পড়ছিল প্রসূতি মা ও মাইনর সার্জারির রোগীরা। সপ্তাহের একদিন শনিবার অন্য হাসপাতাল থেকে সার্জন ও এনেসথেসিয়া ডাক্তার এনে অপারেশনের ব্যবস্থা করাছিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু ওই সার্জন ও এনেসথেসিয়া ডাক্তার প্রতি শনিবার আসতে না পারায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল এ সেবার কার্যক্রম। দীর্ঘ ৬ মাস পর যশোর জেলা সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এস এম মাহমুদুর রহমার রিজভীর প্রচেষ্টায় গতকাল মঙ্গলবার থেকে শুরু হল সিজার ও মাইনর সার্জারি কার্যক্রম।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এস এম মাহমুদুর রহমান রিজভী জানান, সিজার ও মাইনর সার্জারি বিভাগে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডাক্তার না থাকায় এ কার্যক্রম মুখথুবড়ে পড়েছিল। নিজ প্রচেষ্টা ও যশোর সদর হাসপাতালের তত্তাবধায়ক ডা. দীলিপ রায়ের সহযোগিতায় অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. ইফ্ফাত দীপ্তিকে সার্জারি এবং ডা. চন্দন সরকারকে এনেসথেসিয়ার উপর ৬ মাসের প্রশিক্ষণ করানো হয়। প্রশিক্ষণ শেষে মঙ্গলবার সিজার ও মাইনর সার্জারি বিভাগের ফের যাত্রা শুরু হল। এখন থেকে প্রতিনিয়ত এ সেবা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।