সরকারি রাস্তা, নামপত্তন ব্যক্তির নামে !

অপরাধ ও আইন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর যশোর জেলার খবর

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি।।
যশোরের অভয়নগরে সরকারি রাস্তা ব্যক্তির নামে নামপত্তন হয়েছে। গড়ে উঠেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসতবাড়ি। উপজেলার বাঘুটিয়া ইউনিয়নের ভাটপাড়া মৌজায় ভাটপাড়া বাজারে এ ঘটনা ঘটেছে। দখলকারীদের বিরুদ্ধে জারি হয়েছে উচ্ছেদ নোটিশ। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তা বলছেন তদন্তপূর্বক দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জানা গেছে, ৬৪ নং ভাটপাড়া মৌজার ১০০৭ খতিয়ানের জেএল নং- ৬৪ এর ৩৭৬৩ দাগে সরকারি রাস্তার জমি কিনে নামপত্তন করে নির্মাণ করেছে নাদিম মেডিকেল নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এছাড়া একই খতিয়ানের ৩৭৬১ দাগে বসতবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করছেন ভাটপাড়া গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে দিদার, মোহাম্মদ আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন, মোবারকের ছেলে হান্নান, আবেদিনের ছেলে শহিদুল, অমেদ আলীর ছেলে জিন্নাত ও আবু তাহের। রাস্তার শেষ প্রান্তে গড়ে উঠেছে কয়েকটি চায়ের দোকান।
নাদিম মেডিকেলের মালিক ইউনুস আলী বলেন, ‘আমি ২০১৯ সালে স্থানীয় কাজী মাহামুদ হোসেনের নিকট থেকে চার লাখ টাকা দিয়ে এক শতক জমি ক্রয় করি। ২০২০ সালের ২৯ জানুয়ারী আমার নামে নামপত্তন হয়েছে। তবে বসতবাড়ি নির্মাণকারী শহিদুল ও জিন্নাতের সাথে কথা হলে তারা জানান, সরকারি রাস্তার উপর বাড়ি করেছি, সরকার চাইলে আমরা জমি ছেড়ে দেব।ভাটপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের নায়েব মফিজুর রহমান জানান, ১৯৬২ সালের ম্যাপের নঁকশা অনুযায়ী নাদিম মেডিকেল নামের প্রতিষ্ঠানটি সরকারি রাস্তার উপর নির্মিত হয়েছে। কিন্তু ১৯৮৮ সালের ম্যাপে ওই রাস্তার অস্তিত্ব নাই। তাহলে কিভাবে সরকারি রাস্তা ইউনুসের নামে নামপত্তন হয়েছে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দখলকারী ৬ জনের বিরুদ্ধে নোটিশ জারি করা হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে স্থাপনা অপসারণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এসময় উপস্থিত ভাটপাড়া গ্রামের শতবর্ষী বয়সি সাফায়েত মোল্যা ওরফে সাকা মোল্যা জানান, ১৯৬২ সালের ম্যাপ অনুযায়ী বর্তমানের ৩৭৬১ ও ৩৭৬৩ দাগে সরকারি রাস্তা ছিল। যে রাস্তা এক সময় ভাটপাড়া বাজারের মূল সড়কের সাথে সংযুক্ত ছিল। ওই রাস্তার উপর পর্যায়ক্রমে গড়ে উঠেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসতবাড়ি। তিনি আক্ষেপক করে বলেন, ১৯৬২ সালের ম্যাপে থাকা রাস্তা ১৯৮৮ সালের ম্যাপ থেকে কিভাবে হারিয়ে গেল। বাঘুটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরামুজ্জামান কুদ্দুস বলেন, ভাটপাড়া ভুমি অফিসের কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের দায়ীত্বহীনতার কারণে সরকারি রাস্তা ব্যাক্তির নামে নামপত্তন হয়েছে। দায়ি ব্যাক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক রাস্তা উদ্ধারের দাবি করেন তিনি।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেএম রফিকুল ইসলাম বলেন,‘আমি যোগদানের পূর্বে এ ঘটনা ঘটেছে। ম্যাপ থেকে সরকারি রাস্তার নকশা পরিবর্তণ কখনও গ্রহণ যোগ্য নয়। সরকারি রাস্তা কিভাবে ব্যাক্তির নামে নামপত্তন হয়েছে তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করা হচ্ছে। সরকারি সংশ্লিষ্টতা থাকলে ১৯৫০ সালের ভূমি আইনানুযায়ী দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকতার দায়িত্বে থাকা বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুসেইন খাঁন বলেন, জরিপ বিভাগের কারণে এমন ঘটনা ঘটতে পারে। বিয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।