প্রথমে মা ডাকেন,পরে জিম্মি করে টাকা-গহনা লুট করেন !

অপরাধ ও আইন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল দেশের খবর

যশোর প্রতিনিধি।।

‘মায়ের মতো দেখতে’ বলে ফাঁদ তৈরি এবং বিপদ থেকে উদ্ধার করার কথা বলে সুফিয়া বেগম (৪৫) নামে এক নারীর কাছ থেকে সোনার গহনা ও নগদ টাকা হাতিয়ে নিয়ে চম্পট দিয়েছে একটি প্রতারক চক্র। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টার দিকে শহরের লালদিঘির পাড়ে। সুফিয়া বেগম পালবাড়ির মোড়ের আব্দুর রহমানের স্ত্রী।

সুফিয়া বেগমের ছেলে পাপ্পু জানিয়েছেন, রোববার সকালে তার মা একটিন সার্টের পিস কিনতে যশোর এইচএমএম রোডে যান। সেখানে গেলে তিন যুবক তার সামনে এসে দাঁড়ায় এবং বলে ‘আপনি আমার মায়ের মতো দেখতে। আমি ঢাকায় থাকি এখানে কাউকে চিনি না। আমার কাছে একটি পণ্য আছে যারমূল্য এক লাখ টাকা। আমি এ গুলো বিক্রি করে আপনার সাথে বাড়িতে যাবো। পরে ঢাকায় ফিরে যাব। আপনি আমাকে সাহায্য করেন।’ এই কথার সাথে আরো অনেক মিথ্যা কথা বলে তার মা সুফিয়া বেগমকে লালদিঘির পাড়ে নিয়ে যায়। পরে সেখানে গেলে একটি প্যাকেট তার হাতে ধরিয়ে দেয়। এরপর বলে এতে অবৈধ পণ্য আছে। আপনাকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়া হবে। আমাদের কথা মতো পারলে (ব্যাগে) থাকা টাকা আর গহনা না দিলে পুলিশ দিয়ে জেলে পাঠানো হবে। তিনি ভয় পেয়ে একটি সোনার চেইন, এক জোড়া কানের দুল এবং ব্যাগে থাকা নগদ ৫ হাজার টাকা দিয়ে দেন। পরে তাকে ফেলে তিন প্রতারক সটকে পড়ে। প্রতারকরা চলে যাওয়ার পর ওই নারী প্যাকেট খুলে দেখেন একটি চানাচুর ভর্তি প্যাকেট। বিশেষ কায়দায় কাগজ দিয়ে মোড়ানো ছিলো প্যাকেটটি।

তিনি বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি জানালে এই ব্যাপারে তার ছেলে পাপ্পু কোতয়ালি থানায় অভিযোগ দেয়ার জন্য রোববার রাতে যান। শেষ সংবাদ পাওয়া পর্যন্ত অভিযোগ দেয়ার প্রস্তুতি চলছিল।