অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান সাহাবুল

দেশের খবর

 

নজরুল ইসলাম, গফরগাঁও (ময়মনসিংহ)।।

সড়ক দুর্ঘটনায় সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলে রাব্বিকে (১৪) হারিয়ে দিশাহারা হয়ে পড়েছেন ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের হত দরিদ্র অসহায় একটি পরিবার। ছেলের শোকে শারীরিক প্রতিব›দ্বী বাবা কামাল হোসেনও শয্যাশায়ী। সোমবার বিকালে শ্রীপুরের জৈনা বাজারে ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কে মুরগী বোঝাই পিকআপ ভ্যান চাপায় ওয়েল্ডিং দোকানের শ্রমিক রাব্বি মারা যায়। এ অবস্থায় দিশাহারা পরিবারটির পাশে দাঁড়িয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবুল আলম। তিনি গভীর রাত পর্যন্ত শ্রীপুর থানা পুলিশের সাথে যোগাযোগ করে মৃতদেহ দাফনের ব্যবস্থা করাসহ দোকান মালিকের কাছ থেকে নিহতের পরিবারের জন্য আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার রাওনা ইউনিয়নের ছয়বাড়িয়া (দক্ষিণ পাড়া) গ্রামের শারীরিক প্রতিব›দ্বী কামাল হোসেনের তিন ছেলের মধ্যে বড় ছেলে রাব্বি (১৪) একমাত্র উপার্জনক্ষম। রাব্বি গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার জৈনা বাজারে ওয়েল্ডিংয়ের দোকানে শ্রমিক হিসাবে কাজ করে সংসার চালাচ্ছিল। সোমবার বিকাল ৪ টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় মুরগী বোঝাই একটি পিকআপ ভ্যান চাপায় রাব্বি ঘটনাস্থলেই মারা যায়। পরে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যান। রাব্বির মৃত্যুর খবর পেয়ে পরিবারটি দিশাহারা হয়ে পড়ে। কামাল হোসেন ছেলের মৃত্যুর পর থেকে শয্যাশায়ী। খবর পেয়ে রাওনা ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবুল আলম ছুটে এসে অসহায় পরিবারটির পাশে দাঁড়ান এবং দীর্ঘ রাত পর্যন্ত শ্রীপুর থানা পুলিশ ও দোকান মালিকের সাথে যোগাযোগ করে লাশ দাফন ও নিহতের পরিবারের জন্য আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবুল আলম বলেন, খুবই হৃদয় বিদারক ঘটনা। কামাল হোসেন শারীরিক প্রতিব›দ্বী। পাঁচ জনের সংসার চালাচ্ছিল বড় ছেলে রাব্বি। কোন চাপ ছাড়াই দোকান মালিক সোহাগ নিহতের পরিবারকে এক লাখ ১৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন।