মরিচের ঝাঁঝে অস্থির কাঁচাবাজার

অর্থনীতি যশোর জেলার খবর

স্টাফ রিপোর্টার।।

কাঁচা মরিচের ঝাঁঝ বেড়েই চলেছে।যশোরের বাজারে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে এর দাম। যেকারনে নাকাল ক্রেতা সাধারণ। বাজার থেকে কাঁচা মরিচের পরিবর্তে তাই শুকনা মরিচ নিয়ে বাড়ি ‍ফিরছেন নিম্ন আয়ের মানুষেরা। সপ্তাহ ধরে যশোরের বিভিন্ন হাট-বাজারে ২০০ থেকে ২৪০ টাকা দরে কাঁচা মরিচ বিক্রি হলেও সোমবার (৩১ আগস্ট) ৪০ টাকা বেড়ে তা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকায়।
যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বই ব্যবসায়ী আহাদ আলী বলেন,‘কাঁচা মরিচ এখন ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।  মরিচ কিনতে গেলে চাহিদামতো সবজি কেনা সম্ভব হচ্ছে না’। এ উপজেলা সদরের  বাসিন্দা কৃষক সাইফুল ইসলাম বলেন, কাঁচা মরিচের যে দাম দেখছি-তাতে মরিচ ছাড়া তরকারি খেতে হবে।একই অবস্থা যশোরের কেশবপুরেও। এ উপজেলার স্থানীয় সংবাদকর্মী উৎপল দে জানান,স্থানীয় বাজারগুলোতে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকা দরে।যা গেল সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে ২০০ থেকে ২৪০ টাকায়।এদিকে যশোর বড় বাজারে কাঁচা মরিচ প্রকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে ২৮০ টাকায়।এ বাজারের ক্রেতা ইয়াসিন আলী বলেন,‘গত ৭/৮ দিন আগে ২৫০ গ্রাম মরিচ কিনেছিলাম ৫০ টাকায়। আর আজ ৭০ টাকায় কিনলাম। একই অবস্থা বিরাজ করছে অন্য উপজেলায়ও।বাঘারপাড়া বাজারের কাঁচা মরিচ ব্যবসায়ী তৌহিদুর রহমান জানান, মরিচের ক্ষেত পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় কাঁচা মরিচ খুব একটা পাওয়া যাচ্ছে না। যা পাওয়া যাচ্ছে-তা চড়া দামে কিনতে হচ্ছে। এ অঞ্চলে মরিচ আসছে ফরিদপুরের মধুখালি থেকে। ২/১ দিনের মধ্যে বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এদিকে কাঁচামরিচের পাশাপাশি বেড়েছে কয়েকটি সবজির দামও। গেল সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে পটল,কাচাকলা,মিষ্টি কুমরা,করোলা,ঢেড়স,লাল শাক,পেঁপেসহ বেশ কয়েকটি সবজির দাম। এসব সবজি দাম ১০ থেতে ২০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।