আমতলীতে বাস ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ১: আহত ৪

দেশের খবর

হায়াতুজ্জামান মিরাজ, আমতলী (বরগুনা)।
বরগুনার আমতলী- কলাপাড়া- কুয়াকাটা আঞ্চলিক মহাসড়কের ছুরিকাটা সৈকত ফিলিং স্টেশনের সামনে যাত্রীবাহী বাস ও মোটর সাইকেলের সংঘর্ষে মোটরসাইকেল আরোহী খলিলুর রহমান (৩৫) নিহত হয়েছেন। এ দূর্ঘটনায় গুরুত্বর আহত ৪ জনের মধ্যে ২ জন বরিশাল ও ২ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।নিহত খলিলুর রহমান কলাপাড়া উপজেলার চম্পাপুরের ইউনিয়নের নসু হাওলাদারের পুত্র।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, শনিবার দুপুর ১২ টা ১৫ মিনিটের সময় কুয়াকাটা থেকে ছেড়ে আসা বরিশালগামী ইউনা ক্লাসিক (ঢাকা মেট্রো ব- ১৫-০৩৫৯) যাত্রীবাহী বাসটি আমতলী-কলাপাড়া- কুয়াকাটা আঞ্চলিক মহাসড়কের সৈকত ফিলিং স্টেশনে কাছে পৌছলে সৈকত ফিলিং স্টেশন থেকে একটি মোটর সাইকেল জ্বালানী ভর্তি করে আঞ্চলিক মহাসড়কে উঠতে যায়। এসময় যাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে মোটর সাইকেলটিকে চাপা দিলে মোটর সাইকেলটি দুমরে মুচরে যায়। ঘাতক বাসটি নিয়ন্ত্রন হাড়িয়ে রাস্তার পাশে গাছের সাথে ধাক্কা লেগে সামনের অংশ ভেংগে যায়। এতে মোটর সাইকেল আরোহী খলিলুর রহমান ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। নিহত খলিলুর রহমান কলাপাড়া উপজেলার চম্পাপুরের ইউনিয়নের নসু হাওলাদারের পুত্র। দূর্ঘটনায় মোটর সাইকেল ড্রাইভার মিরাজ মুন্সী (৩০) বাস যাত্রী জুয়েল, আমির হোসেন ও আকলিমা বেগম গুরুত্বর আহত হয়।
সংবাদ পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় আহত ও নিহতদের উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। এদের মধ্যে কর্তব্যরত চিকিৎসক গুরুতর আহত বাসযাত্রী আমির হোসেন ও আকলিমা বেগমকে আমতলী এবং মিরাজ মুন্সী ও জুয়েলকে আশংকাজনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেন। পুলিশ ঘাতক বাসটিকে আটক করলেও বাসের ড্রাইভার ও হেলপার পালিয়ে গেছে।
আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ শাহআলম হাওলাদার বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহত মোটর সাইকেল আরোহী খলিলুর রহমান এর লাশ বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে।