বন্ধুদের সাথে সাঁতার কেটে বাড়ি ফেরা হলোনা ইকরামুলের

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল যশোর জেলার খবর

যশোর প্রতিনিধি
যশোরের বেনাপোলে নদীতে সাঁতার কাটতে যেয়ে হারিয়ে যাওয়া ইকরামুল ইসলাম (১৫) নামে এক কিশোরের মরদেহ ৭ ঘন্টা পর উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। এর আগে বেনাপোল ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা উদ্ধার করতে ব্যর্থ হলে খুলনা ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল এসে সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার বেনাপোল পোর্ট থানার কোদলা নদীর ধান্যখোলা-ঘীবা জোড়া ব্রিজে।
স্থানীয়রা জানায়,এদিন বেলা ১টার দিকে কোদলা নদীতে তিন বন্ধু ইকরামুল,রনি ও হাবিবুল্লাহ সাঁতার কাটতে যেয়ে ইকরামুল হারিয়ে যায়। ইকরামুল ইসলাম (১৫) ধান্যখোলা গ্রামের দক্ষিনপাড়ার ইমামুল ইসলামের ছেলে।
ঘীবা গ্রামের আজিজুল ইসলাম বন্ধুদের বরাতে বলেন ,ইকরামুল,রনি ও হাবিবুল্লাহ কোদলা নদীর ব্রীজ থেকে লাফ মেরে সাঁতার কেটে দক্ষিন দিকে যায়। সেখান থেকে ফেরার সময় রনি ও হাবিবুল্লাহ ব্রীজের উপর উঠলেও ইকরামুল উঠতে পারেনি। গ্রামের লোকজন এসেও যখন উদ্ধার করতে পারেনি তখন বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসে খবর দেওয়া হয়।
রনি সাংবাদিকদের বলেন,আমরা তিনবন্ধু একসাথে সাঁতার কেটে আসছিলাম। ব্রীজের কাছে এসে ইকরামুল হারিয়ে যায়।তাকে আমরা দেখতে না পেয়ে খুঁজাখুজি করে গ্রামের লোকজনদের খবরটি জানাই। এরপর গ্রামের লোকজন এসে চেষ্টা করে তাকে উদ্ধার করতে পারেনি।
বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট প্রধান তৌহিদুর রহমান সুমন বলেন, বেনাপোল ইউনিটের ৮জনের চেষ্টা ব্যর্থ হলে খুলনা ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলকে খবর দেওয়া হয়।তারা ৭টার দিকে ঘটনাস্থলে এসে সন্ধা সোয়া ৭টার দিকে ইকরামুলের মরদেহ উদ্ধার করে।
ওই কিশোর কোদলা নদীর ব্রীজের ১০গজ সামনে আটকে ছিল। দক্ষিন পাশ থেকে ডুব দিয়ে উত্তর পাশে ব্রীজের নীচে দিয়ে উঠার মত কোন অবস্থা ছিল না।সেখানে প্রচুর পরিমানে কচুরীপানা এবং অন্যান্য পানি বাহিত গাছ জমে আছে। স্থানীয়রা আবর্জনার মধ্যে আটকে তার মৃত্যু হয়েছে।